বাংলা সিনেমায় মুসলিমদের সংস্কৃতি তুলে ধরতে মাজারের দৃশ্য কেন?


বাংলা সিনেমায় অনেক সময় মুসলিম সংস্কৃতি তুলে ধরতে বিভিন্ন মাঝারে বা মাঝারের মতো সেট বানিয়ে তাতে গান বাজনা ও নাচের দৃশ্যায়ন করা হয় কিংবা দয়াল বাবার কাছে মোনাজাত ধরতে দেখা যায়। কিন্তু মাঝারে গান-বাজনা-নাচ বা দয়াল বাবার কাছে কিছু চাওয়া ইসলামের সংস্কৃতি নয়। ধর্মকে বিকৃত করে সিনেমায় বা মিউজিক ভিডিওতে দেখানো অনুচিত।
মাজারে ইবাদাতের দৃশ্য, যা হারাম

আমরা অনেকেই সিনেমা দেখি বা বিভিন্ন রকমের মিউজিক ভিডিও প্রায় প্রতিটি দিনই দেখি। সেখানে হয়ত এমন কিছু দৃশ্য দেখি যা আমাদের দেখা উচিৎ নয় এবং এতে আমাদের পাপও হয়ত হয়। কিন্তু এসবে আমাদের যতটা না ক্ষতি হয় তার থেকে বেশি ক্ষতি হয় ধর্ম বিকৃতি করে যে দৃশ্য আমাদের দেখানো হয়। এতে করে শিরককে পাকাপাকিভাবে গ্রহন করার মানসিকতা তৈরি হয়ে যেতে পারে।

বাংলাদেশের অনেক মুসলমান পরিচালক ও শিল্পিই এরকম করেছেন। এই তালিকার সর্বশেষ সংযোজন সম্ভবত শাকিব খান। এমনকি ভারতের জিৎকেও দেখেছি। জিৎ-এর কোনো একটি সিনেমাতে ইদের গান ছিল এবং সেটির দৃশ্যায়ন হয়েছিল মাঝারে। এরপরে আরেকটি সিনেমাতে একটি নামাজের দৃশ্য ছিল যেটি করা হয়েছে কবরের সামনে, অর্থাৎ সিজদাহ করা হয়েছে কবরকেই।

এসবে ইসলাম ধর্ম সম্পর্কে মুসলমানসহ অন্য ধর্মের লোকদের কাছেও একটি ভুল ধারণা জন্মে যেতে পারে। তাঁরা ভেবেই নিতে পারে আমরা হয়ত কবরকেই সিজদাহ করি এবং দয়াল বাবার কাছেই সাহাজ্য চাই।
এমনও হতে পারে অন্যসব ধর্মও একইভাবে বিকৃত করে পর্দায় দেখানো হয়।

বি.দ্র.: সিনেমা দেখা ভাল নাকি মন্দ এবং কে কতটুকু ধর্ম মানে সে নিয়ে বিতর্ক করা আমার উদ্দেশ্য নয়, এটি একেকজনের ব্যক্তিগত বিষয়।

- মু. মিজানুর রহমান মিজান
Previous Post Next Post